ফোনে বিনামূল্যে শিক্ষকদের সহযোগিতা পাবেন শিক্ষার্থীরা

0
424

কোভিড-১৯ মহামারীতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের সময় শিক্ষার্থীরা ঘরে বসে ফোন করে যাতে শিক্ষকদের সহযোগিতা নিতে পারেন, সেই ব্যবস্থা করতে যাচ্ছে সরকার।

এই সময়ে ৩৩৩ হটলাইন নম্বরের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে এই সেবা দিতে কাজ চলছে বলে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি জানিয়েছেন।

তিনি রোববার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “৩৩৩ হটলাইন নম্বর থেকে একটা অপশন শিক্ষার্থীরা পাবে, যেখান থেকে ফোন করে শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলতে পারবে।”

আইসিটি মন্ত্রণালয় ও এটুআইয়ের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে এই সিদ্ধান্ত হয়েছে জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, “আশা করি, সহসাই কাজটি শুরু করে দিতে পারব, অবশ্যই এটা টোল ফ্রি হবে।”

একজন শিক্ষার্থী ফোন করে শিক্ষকের সঙ্গে কতক্ষণ কথা বলতে পারবেন, সেই সময় বেঁধে দেওয়া হবে কি না- এই প্রশ্নে দীপু মনি বলেন, “এসব বিষয় মাথায় রেখেই আমরা এটি চূড়ান্ত করব।”

করোনাভাইরাসের প্রকোপ বাড়তে থাকায় গত ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়েছে। এই ভাইরাসের সংক্রমণ না কমলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটি আরও বাড়বে বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান টানা বন্ধ থাকায় পাঠদানের ধারাবাহিকতা রাখতে গত ২৯ মার্চ থেকে মাধ্যমিকের এবং ৭ এপ্রিল থেকে প্রাথমিকের ক্লাস সংসদ টিভিতে দেখানো শুরু হয়েছে।

এই ক্লাস দেখে শিক্ষার্থীদের বাড়ির কাজ করে স্কুল খোলার পর তা সংশ্লিষ্ট শিক্ষকের কাছে জমা দিতে হবে। এই বাড়ির কাজের উপর প্রাপ্ত নম্বর শিক্ষার্থীদের ধারাবাহিক মূল্যায়নের অংশ হিসেবে বিবেচিত হবে।

সংসদ টেলিভিশনে যেসব ক্লাস দেখানো হচ্ছে, বিভিন্ন কারণে অন্তত ২৫ শতাংশ শিক্ষার্থী তাতে অংশ নিচ্ছেন না বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক রোববার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, শিক্ষার্থীরা শিক্ষকদের ফোন করে কথা বলার সুযোগ পেলে যেসব বিষয় তারা বুঝতে পারছে না সেগুলো বুঝে নিতে পারবে।

আর প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. ফসিউল্লাহ বলেন, প্রাথমিকের ৩০-৪০ শতাংশ শিক্ষার্থী টিভি ক্লাসের বাইরে রয়েছে। তাদের জন্য এটুআইয়ের সহযোগিতায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং আইসিটি মন্ত্রণালয় মিলে কল করে শিক্ষকদের সহযোগিতা নেওয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

“মোবাইল ফোনে কোনো খরচ ছাড়াই তারা শিক্ষকদের সঙ্গে যুক্ত হতে পারবে, সেই প্ল্যাটফর্ম করা হচ্ছে। শিশুরা ফোন করে শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলতে পারবে, বিভিন্ন বিষয়ে প্রশ্ন করে জানতে পারবে।”

করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে ৩৩৩ হটলাইন নম্বরে ফোন করে স্বাস্থ্যসহ বিভিন্ন সেবার পাশাপাশি অভাবী মানুষরা যাতে ত্রাণ সহায়তাও নিতে পারেন, সেই ব্যবস্থা করেছে সরকার। এর ফলে ত্রাণ বঞ্চিত অনেকেই এই নম্বরে ফোন করে সরকারি ত্রাণ পাচ্ছেন।

৩৩৩ হটলাইনের মাধ্যমে সব সরকারি সেবা প্রাপ্তির পদ্ধতির তথ্য প্রদান; বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা সম্পর্কিত তথ্য প্রদান; সরকারি কর্মকর্তাদের সাথে যোগাযোগের তথ্য প্রদান এবং সামাজিক সমস্যা প্রতিকারে জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের কাছে অভিযোগ দাখিল নিয়ে তথ্য সেবা দেওয়া হয়ে থাকে। নতুন করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরুর পর এর মাধ্যমে স্বাস্থ্য সেবাও দেওয়া হচ্ছে।

আইসিটি বিভাগের একজন কর্মকর্তা বলেন, এমন হতে পারে ৩৩৩ নম্বরে ফোন করে প্রথম পাঁচ মিনিট কোনো টাকা ছাড়াই শিক্ষার্থীরা কথা বলতে পারবে। আরও বেশি সময় ধরে কেউ শিক্ষকের সহায়তা নিতে চাইলে প্রতি মিনিটের জন্য নির্ধারিত ফি কাটা হবে।

“কারণ অনেক সময় নিয়ে কথা বলার সুযোগ থাকলে বহু সংখ্যক শিক্ষার্থী এই সেবা নিতে পারবে না। আমরা চাই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের মধ্যে প্রকৃতপক্ষেই যাদের শিক্ষকদের সহায়তা প্রয়োজন, তারা যেন এই প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে উপকৃত হয়।”

শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা বলছেন, ৩৩৩ হটলাইন নম্বরকে দুই মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যুক্ত করার পর আইসিটিসি বিভাগ ছাড়াও এই দুই মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রণ কক্ষের জন্য আলাদা জনবল নিয়োগ দিতে হবে।

একজন কর্মকর্তা বলেন, “কোনো শিক্ষার্থী কোন বিষয়ের শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলতে চান তা ফোন করার সময়ই নির্ধারণ করে দিতে হবে। এরপর সংশ্লিষ্ট শিক্ষক সেই ফোন রিসিভ করবেন। যেহেতু তাৎক্ষণিক সেবা দেওয়ার বিষয় তাই দক্ষ শিক্ষকদের বাছাই করে এই কাজে সম্পৃক্ত করা হবে।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here