রাজশাহীতে আম পাড়ার সময় নির্ধারণ

0
211

অসময়ে সংগ্রহ বন্ধ রাখতে রাজশাহীতে আম পাড়ার সময় নির্ধারণ করেছে জেলা প্রশাসন।

সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামী ১৫ মে এর আগে কোনো আম নামানো যাবে না বলে শুক্রবার জেলা প্রশাসনের এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

জেলা প্রশাসক হামিদুল হক স্বাক্ষরিত এই বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ১৫ মে থেকে সকল প্রকার গুটি আম পাড়তে পারবেন চাষিরা। গোপালভোগ আম নামাতে পারবেন ২০ মে থেকে। এছাড়া রানীপছন্দ ও লক্ষ্মণভোগ বা লখনা ২৫ মে, হিমসাগর বা খিরসাপাত ২৮ মে, ল্যাংড়া ৬ জুন, আম্রপালি ১৫ জুন এবং ফজলি ১৫ জুন থেকে নামানো যাবে। সবার শেষে ১০ জুলাই থেকে নামবে আশি^না এবং আশ্বিনা আম-৪।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, অপরিপক্ব আম বাজারজাত ঠেকাতে কঠোর অবস্থানে থাকবে প্রশাসন। সুষ্ঠুভাবে মনিটরিং করে নির্দিষ্ট সময়েই আম নামানো হবে।

অসময়ে আম পাড়া বন্ধে এবং নানা ধরনের রাসায়নিক ব্যবহারের মাধ্যমে যেন আম পাকানো না হয় তার জন্য নামানোর ক্ষেত্রে সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছে বলে বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়।

প্রশাসনের নির্দেশনা ভ্রাম্যমাণ আদালত এবং পুলিশ কঠোরভাবে মনিটরিং করবে বলে হুঁশিয়ার করা হয়।

তবে আবহাওয়ার তারতম্যের কারণে কোথাও নির্ধারিত সময়ের আগে গাছে আম পাকলে সংশ্লিষ্ট উপজেলা প্রশাসনকে জানিয়ে চাষিরা আম পাড়তে পারবেন বলেও বলা হয় বিজ্ঞপ্তিতে।

বিজ্ঞপ্তিতে আম বাজারজাত করার ব্যাপারেও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে বলা হয়, কৃষিপণ্য লকডাউনের বাইরে থাকায় চাষিদের চিন্তার কোনো কারণ নেই। তাছাড়া ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারগুলোকে কাজে লাগিয়ে অনলাইনে অর্ডার নিয়ে কুরিয়ার সার্ভিসে আম পাঠানোর উদ্যোগ নেওয়া যেতে পারে। ইতিমধ্যে সকল উপজেলায় এ ধরনের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

রাজশাহী ফল গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা আলীম উদ্দিন বলেন, জেলায় এবার ১৭ হাজার ৫৭৩ হেক্টর জমিতে আমের বাগান রয়েছে। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ২ লাখ ১০ হাজার মেট্রিক টন।

তিনি বলেন, রাজশাহীতে আমের অবস্থা ভালো আছে। এখনই চাষিরা যদি পরিচর্যা বাড়াতে পারেন তাহলে ফলন নিয়ে কোনো সংশয় থাকবে না। তবে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি দীর্ঘ মেয়াদী হলে বাজারজাতে সমস্যায় পড়তে হবে। বিশেষ করে পরিবহন চলাচল শুরু না হলে ব্যবসায়ীরা ক্ষতির মুখে পড়বে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here