হাঁপিয়ে তোলা ‘লকডাউন’ যেভাবে উঠছে ইউরোপে

0
335

করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে সপ্তাহের পর সপ্তাহ লকডাউনে হাঁফিয়ে ওঠা ইউরোপের দেশগুলো নানা প্রক্রিয়ায় নাগরিকদের প্রাত্যহিক জীবনযাত্রা সহজ করার পদক্ষেপ নিচ্ছে।

এতে এসব দেশের মানুষ বন্দিদশা থেকে আপাত মুক্তি পেয়ে কিছুটা হাঁফ ছাড়লেও বিধিনিষেধ শিথিলে সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার ঝুঁকিও চোখ রাঙাচ্ছে।

সোমবার নাগাদ করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৪১ লাখ ৪৮ হাজার ছাড়িয়েছে। এর এক-তৃতীয়াংশ সুস্থ হয়ে উঠলেও প্রাণঘাতী এই ভাইরাস নিষ্প্রাণ করেছে ২ লাখ ৪৮ হাজার জনকে।

এর মধ্যে ঝুঁকি নিয়েও ভেঙে পড়া অর্থনীতি সচলে যুক্তরাজ্য, জার্মানি, ইতালি, স্পেনসহ বিভিন্ন দেশ ধীরে ধীরে যেভাবে অবরুদ্ধ অবস্থা শিথিল করছে, তা তুলে এনেছে বিবিসি।

যুক্তরাজ্যে ‘স্টে হোম’ থেকে ‘স্টে এলার্ট’  

কোভিড-১৯ রোগে সবচেয়ে বেশি ৩২ হাজার মানুষ মারা গেছে যুক্তরাজ্যে; তাই সবাইকে বলা হয়েছিল ঘরে থাকতে।

কিন্তু পরিস্থিতির উন্নতি দেখে সাত সপ্তাহ পর বিধিনিষেধ কিছুটা শিথিল করে দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলছেন, এখন সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ থেকে মুক্ত হয়ে কাজে ফেরা জনসন রোববারই ব্রিফিংয়ে অর্থনীতি সচল করতে নতুন পরিকল্পনা তুলে ধরেন।

যুক্তরাজ্যে যারা বাসায় থেকে কাজ করতে পারছেন তাদের সেভাবেই কাজ করতে হবে। যাদের অফিসে না গেলেই নয়, তারা যেতে পারবেন, তবে তাদের গণপরিবহন এড়ানোর পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। আর অফিসগুলোকে ‘কোভিড-১৯ নীতিমালা’ অনুসরণ করতে হবে, যা পরে প্রকাশ করা হবে।

শিশুদের স্কুল খুলবে ১ জুন থেকে। তবে ক্লাসের সময় কমিয়ে আনা হতে পারে।

সূর্যস্নান, হাঁটাচলাসহ নানা কাজে ঘরের বাইরে এখন আরও সময় থাকতে পারবেন যুক্তরাজ্যের নাগরিকরা; তবে ২ মিটার দূরত্ব রেখে চলতে হবে। তবে খেলার মাঠ ও জিমগুলো বন্ধই থাকবে।

শপিং সেন্টারগুলো জুনে খোলা হতে পারে, তবে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার নীতিমালা মেনে। সেলুনগুলো বন্ধই থাকবে আপাতত।

জুলাই খোলা হতে পারে পাব, ক্যাফে, রেস্তোরাঁ, থিয়েটার, তবে তাও পরিস্থিতি বুঝে, সামাজিক দূরত্ব মেনে।    

সুরক্ষা নিশ্চিত করে গণপরিবহন দ্রুতই চালু করতে চায় সরকার। তবে সবাইকে হেঁটে, সাইকেলে কিংবা নিজের গাড়িতে গন্তব্যে যেতে বলা হয়েছে।

শিশুদের স্কুল খুলবে ১ জুন থেকে। তবে ক্লাসের সময় কমিয়ে আনা হতে পারে।

সূর্যস্নান, হাঁটাচলাসহ নানা কাজে ঘরের বাইরে এখন আরও সময় থাকতে পারবেন যুক্তরাজ্যের নাগরিকরা; তবে ২ মিটার দূরত্ব রেখে চলতে হবে। তবে খেলার মাঠ ও জিমগুলো বন্ধই থাকবে।

শপিং সেন্টারগুলো জুনে খোলা হতে পারে, তবে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার নীতিমালা মেনে। সেলুনগুলো বন্ধই থাকবে আপাতত।

জুলাই খোলা হতে পারে পাব, ক্যাফে, রেস্তোরাঁ, থিয়েটার, তবে তাও পরিস্থিতি বুঝে, সামাজিক দূরত্ব মেনে।    

সুরক্ষা নিশ্চিত করে গণপরিবহন দ্রুতই চালু করতে চায় সরকার। তবে সবাইকে হেঁটে, সাইকেলে কিংবা নিজের গাড়িতে গন্তব্যে যেতে বলা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here