বিরক্তিকর বলেই রোনালদো সেরা

0
118

গত ফেব্রুয়ারিতে পঁয়ত্রিশে পা দিয়েছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। বয়সের ছাপ যেন কখনোই পারফরম্যান্সে পড়তে দেন না জুভেন্টাস ফরোয়ার্ড। এই বয়সেও যেভাবে খেলে চলেছেন তাতে মনে হয় অনায়াসেই আরও লম্বা করবেন ফুটবল ক্যারিয়ার। পর্তুগিজ তারকার শো কেসে জমা আছে পাঁচ পাঁচটি ব্যালন ডি অর ট্রফি।

পাঁচবার জিতেছেন চ্যাম্পিয়নস লিগ শিরোপা। কিন্তু এখনো মাঠে নামলে জয়ের ক্ষুধা এতটুকু কমে না। এমনকি অনুশীলনেও থাকে জেতার আগ্রাসি তাড়না। কখনো কখনো অনুশীলনের রোনালদোকে দেখলে ‘বিরক্তিকর’ বলে মনে হয় সতীর্থ পর্তুগীজ মিডফিল্ডার বের্নার্দো সিলভাকে। আর এই ‘বিরক্তিকর’ কাজগুলোকেই সেরা বানিয়েছে রোনালোদোকে।

ম্যানচেস্টার সিটির মিডফিল্ডার বের্নার্দো রোনালদোর এমন আগ্রাসি মানসিকতার প্রশংসাই করেছেন, ‘আমার মনে হয় তাঁর এমন মানসিকতাই এত বড় বানিয়েছে। ওর বয়স এখন ৩৫ বছর। এবং আরও ১৫ বছর সে শীর্ষ পর্যায়ের ফুটবল খেলতে পারবে কিন্তু তাতেও সে ক্লান্ত হবে না। সে সব সময়ই আরও বেশি কিছু পেতে চায়।’

দেশের ও ক্লাবের হয়ে অসংখ্য ট্রফি জিতেছেন রোনালদো। কিন্তু এখনো রোনালদোর মধ্যে জয়ের ক্ষুধাটা প্রচন্ডভাবে দেখতে পান বের্নার্দো, ‘সে আরও বেশি চ্যাম্পিয়নস লিগ জিততে চায়। পর্তুগালের হয়েও আরও অনেক কিছু জিততে চায়। জিততে চায় আরও অনেক বেশি লিগ, ব্যক্তিগত ট্রফি এবং সে আরও বেশি গোল পেতে চায়।’

অনুশীলনেও রোনালদো কখনো হারতে চান না। বের্নার্দো নিজের অভিজ্ঞতা থেকে সেই কথাগুলোই বলছিলেন, ‘ওর ব্যাপারে যেটা বিরক্তিকর হলো, অনুশীলনে কোনো ম্যাচ খেললে যদি স্কোর ১-১ হয় সেখানেও সে গোল করতে চায়। কোচ যদি বলেন এখন যে দল গোল করবে তারাই জিতবে, তখন সেই গোল করে! এটা শুধু খেলাতেই নয়, সবখানেই সে জিততে চাইবে। কোনো ম্যাচে যদি আপনি জানেন যে নাও জিততে পারেন তখনও যদি বলটা তাকে দেওয়া হয় সে বল নিয়ে বিশেষ কিছু একটা করবেই। এমনকি অনুশীলনেও এটা এক রকম বিরক্তিকর ব্যাপার। কারণ সব সময় সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ গোলটা সেই করবে! আমার মনে হয় সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তে ওটাই ওকে আলাদা করে তোলে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here