ইসরাফিল আলম এমপি আর নেই

0
65

করোনাভাইরাস থেকে সেরে ওঠার পর ফুসফুসের জটিলতা নিয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নওগাঁ-৬ আসনের সাংসদ ইসরাফিল আলম মারা গেছেন।

৫৪ বছর বয়সী ইসরাফিল গত কয়েকদিন ধরে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে ছিলেন। সোমবার সকাল ৬টা ২০ মিনিটে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন বলে তার ভাগ্নে মনোয়ার হোসেন ডন জানান।

নওগাঁর আত্রাই-রাণীনগর আসনের এই সাংসদের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রাষ্ট্রপতি এক শোকবার্তায় বলেছেন, “শ্রমিক রাজনীতি দিয়েই তার রাজনীতিতে পদার্পণ। তিনি সংসদে সবসময় খেটে-খাওয়া সাধারণ মানুষের কথা তুলে ধরতেন। তার মৃত্যুতে দেশ একজন প্রতিশ্রুতিশীল ও নিবেদিতপ্রাণ রাজনৈতিক নেতাকে হারালো।”

আর প্রধানমন্ত্রী তার শোকবার্তায় বলেছেন, “ইসরাফিল আলম আজীবন দেশ ও জাতির কল্যাণে কাজ করে গেছেন।”

ইসরাফিল আলমের করোনাভাইরাস ধরা পড়ে গত ৬ জুলাই। ওই সময়ও তিনি স্কয়ার হাসপাতলে চিকিৎসা নেন। একটু সুস্থ হয়ে উঠলে ঢাকার বাসায় চলে যান। ১৫ জুলাই নমুনা পরীক্ষায় তার করোনাভাইরাস নেগেটিভ আসে।

পরে শ্বাস-প্রশ্বাসে সমস্যা বেড়ে গেলে ১৭ জুলাই আবারও স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয় ইসরাফিল আলমকে।

তার ছোট বোন রুনু গত শনিবার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, সম্প্রতি মা মারা যাওয়ার পর বাড়ি থেকে ফিরেই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন তার ভাই।

“এরপর কোভডি-১৯ নেগেটিভ হলেও মানসিক ও শারীরিকভাবে তিনি ছিলেন খুবই দুর্বল। তার ফুসফুস ৩০ শতাংশের বেশি কাজ করছিল না।”

ইসরাফিল আলমের ভাগ্নে ডন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আজই মামার মরদেহ নওগাঁ নিয়ে যাওয়া হবে।”

নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার গোনা ইউনিয়নের ঝিনা গ্রামে ১৯৬৬ সালে ইসরাফিল আলমের জন্ম। তিতাস গ্যাস কোম্পানিতে মিটার রিডার হিসেবে তিনি চাকরি করেছেন দীর্ঘদিন।

সেখানেই তিতাস কর্মচারী ইউনিয়ন শ্রমিক লীগের মাধ্যমে তার রাজনীতির শুরু। শ্রমিক রাজনীতিতে তিনি ছিলেন আহসানউল্লাহ মাস্টারের শিষ্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here